পঞ্চম বর্ষ / অষ্টম সংখ্যা / ক্রমিক সংখ্যা ৫০

বৃহস্পতিবার, ২১ এপ্রিল, ২০১৬

<<<< সম্পাদকীয় >>>>

কালিমাটি অনলাইন / ৪ 
  

গত মার্চ মাসে নিউদিল্লী কালিবাড়ি প্রাঙ্গনে আয়োজিত বঙ্গ সংস্কৃতি উৎসব ও পঞ্চদশ বইমেলায় একটি আলোচনা সভায় আমন্ত্রিত হয়ে গেছিলাম। আলোচ্য বিষয় ছিল ‘বৃহৎ  বঙ্গের বাংলা কবিতা’। আলোচনা ও কবিতা পাঠ। জামশেদপুর থেকে প্রখ্যাত কবি বারীন ঘোষালেরও আমন্ত্রণ ছিল এই আলোচনা সভায়; কিন্তু ব্যক্তিগত কোনো কারণে তিনি যেতে পারেননি। এছাড়া ত্রিপুরা থেকে কবি শঙ্খশুভ্র দেববর্মনও উপস্থিত থাকতে পারেননি। তবে নাগপুর থেকে কবি সুকুমার চৌধুরী, লক্ষ্ণৌ থেকে কবি সব্যসাচী সান্যাল, মুম্বাই থেকে কবি অর্ঘ্য দত্ত এবং আমেদাবাদ থেকে কবি ঋক সৌরক উপস্থিত ছিলেন। আর এই কবিতাপাঠ ও আলোচনা সভার সংযোজনায় ছিলেন দিল্লীর কবি দিলীপ ফৌজদার।

বেশ কিছুদিন হলো মূল বাংলা ভূখন্ডের বাইরে বসবাস করে নিরবচ্ছিন্ন ভাবে যাঁরা দীর্ঘদিন বাংলা ভাষা ও সাহিত্যচর্চা করে আসছেন, তাঁদে্র রচিত সাহিত্যকে বহির্বঙ্গের সাহিত্য নামে অভিহিত করা হচ্ছিল। এই বিশেষণে সম্বোধন করায় বাংলার বাইরে বসবাসকারী কবি-সাহিত্যিকদের মধ্যে অনেকেই যেমন সমর্থন জানিয়েছিলেন, অন্যদিকে অনেকে আবার প্রতিবাদও জানিয়েছিলেন। সমর্থন ও প্রতিবাদের প্রেক্ষিতে তাঁদের কি যুক্তি ও অভিমত ছিল, সেই বিতর্কে আমরা এখানে আদৌ প্রবেশ করছি না। বরং নিউদিল্লীর বঙ্গ সংস্কৃতি উৎসব ও পঞ্চদশ বইমেলা কমিটি যে নতুন অভিধায় আমাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন, ‘বৃহৎবঙ্গ’, সেই সম্পর্কে কিছু প্রাসঙ্গিক আলোচনা করা যেতে পারেইতিপূর্বে যখন ‘বহির্বঙ্গ’ শব্দটি ব্যবহার করা হতো, তাতে একটা ব্যাপার পরিষ্কার ছিল যে, মূল বাংলা ভূখন্ডে বসবাসকারীদের রচিত বাংলা সাহিত্য নয়, বরং তার বাইরে বসবাসকারী সাহিত্যিকদের রচিত বাংলা সাহিত্য। কিন্তু ‘বৃহৎবঙ্গ’ শব্দটি অনেক গভীর ও ব্যাপক; এবং এক্ষেত্রে বাংলা সাহিত্য শুধুমাত্র মূল বাংলা ভূখন্ডে বসবাসকারী সাহিত্যিকদের রচিত বাংলা সাহিত্য নয়, বরং তার বাইরে বসবাসকারী সাহিত্যিকদেরও রচিত বাংলা সাহিত্য। এটা নিঃসন্দেহে খুবই সুন্দর ও সঠিক ভাবনা। কিন্তু নিউদিল্লী কালিবাড়ি প্রাঙ্গনে আয়োজিত বঙ্গ সংস্কৃতি উৎসব ও পঞ্চদশ বইমেলায় ‘বৃহৎ বঙ্গের বাংলা কবিতা’ আলোচনা সভায় যাঁদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল, তাঁরা সবাই মূল বাংলা ভূখন্ডের বাইরে বসবাসকারী কবি। আর তাই মনে হয়, এই আলোচনা সভায় যদি মূল বাংলা ভূখন্ডে বসবাসকারী কোনো কবিকে আমন্ত্রণ জানানো হতো, তাহলে ‘বৃহৎবঙ্গ’ অভিধাটি যথাযথ ও তাৎপর্যপূর্ণ হয়ে উঠত। তবে একথা অনস্বীকার্য যে, সেদিনের কবিতাপাঠ ও আলোচনা সভা অত্যন্ত গভীর ও প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছিল। উপস্থিত শ্রোতা ও দর্শকদের সঙ্গে ‘ইন্টার‍্যাকসন’ও খুবই আকর্ষণীয় ছিল। আর নিউদিল্লীর বঙ্গ সংস্কৃতি উৎসব ও পঞ্চদশ বইমেলা কমিটি যে সুন্দর সহযোগিতা ও আতিথেয়তায় আমাদের সম্মান ও সংবর্ধনা জানিয়েছেন, তাতে আমরা সবাই অভিভূত।

শুরু হয়েছে নতুন বাংলা বছর। সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা, শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানাই।     
     
আমাদের সঙ্গে যোগাযোগের ই-মেল ঠিকানা :

দূরভাষ যোগাযোগ :           
0657-2757506 / 09835544675
                                                         
অথবা সরাসরি ডাকযোগে যোগাযোগ :
Kajal Sen, Flat 301, Phase 2, Parvati Condominium, 50 Pramathanagar Main Road, Pramathanagar, Jamshedpur 831002, Jharkhand, India

      

<<<< কথনবিশ্ব >>>>


অমর্ত্য মুখোপাধ্যায়

মেজরিটি: গণতন্ত্রে




                                                                              
একটা বড় লেখা শুরু করেছিলাম কালিমাটির জন্য। তাতে হবে অনেক ইংরেজি  কবিতার অনুবাদ। সময় লাগবে! কিন্তু এখনকার কিস্তি তো দিতেই হবে! তাই ওটা পরকালের (????) জন্য রেখে দিয়ে উপস্থিত চটজলদি কিছু দিইকী দেবো, ভাবতে ভাবতে মনে পড়ল যে বেশ কিছুকাল ধরে কিছু কুৎসাপরায়ণ টিভি চ্যানেল পঃবঙ্গে জনকল্যাণবাদী শাসকদলের কোনো অনিয়ম/বেনিয়মের কথা তুললেই  তাঁদের মুখপাত্র(রা) আগামী, এখন আরব্ধ নির্বাচনে জণগনের রায়ের কথা বলছেন; বলছেন জগণই জবাব দেবে — সম্ভবতঃ এই প্রত্যয় থেকে যে জণের রায়ই বলে দেবে তাঁরা বেনিয়মে ঠিক না কুৎসাকারীরা তাঁদের নিয়মের আবাহনে! এতে চ্যানেল সঞ্চালক যদি জানান যে জনগণের রায় বেদবাক্য হলে’ ওই বহু ধিক্কৃত চৌত্রিশেও বামের কোনো কাজ ভুল ছিল না, তখন সায়ান্টিফিক রিগিং-এর কথা চলে আসে। কিন্তু চ্যানেল সঞ্চালক বা প্রতিবাদী প্রতিবেদক কেউই গণতন্ত্রে মেজরিটির ধারণাটাকে খতিয়ে দেখেন না। ভারতবর্ষে ভোটের জলীয়তা বা ভৌতিকতা সুবিদিত। বাম, ঘাস, রাম যেই তাতে জড়িত থাকুক না। ফলে মেজরিটি মত দিলেও তার প্রামাণিকতায় সন্দেহ থেকেই যায়। কিন্তু যদি এমন হয়ও যে প্রতিটি পঃবঙ্গীয় ভোট ইংলণ্ডে স্কটল্যান্ডের থাকা নিয়ে করা রেফারেণ্ডামের তোSimon pure বা খাঁটি, তবু কি তার ফলে ক্ষমতায় আসীন দলের এবং তার সরকারের সব কাজ/অকাজ/বিবেচনা/অবিবেচনা বৈধ ও সিদ্ধ হয়ে যায়? এর পিছনে যে মানসিকতা ক্রিয়াশীল তাকে বলা যায় সংখ্যাধিক্যবাদ বা সংখ্যাগরিষ্ঠতাবাদ, তথা majoritarianismসব সময়ে সেটা গণতন্ত্রের  শুভ নয়।

সুধী পাঠক, জানি এই কথা শুনে অনেকের আজব লাগবে, তাজ্জব হবেন। তাই একটু বুঝিয়ে বলি! শুরু করা যাক সংখ্যাধিক্যবাদের সংজ্ঞা দিয়েই। উইকিতে বলে ‘Majoritarianism is a traditional political philosophy or agenda that asserts that a majority (sometimes categorized by religion, language, social class, or some other identifying factor) of the population is entitled to a certain degree of primacy in society, and has the right to make decisions that affect the society কিন্তু আরেকটু তলিয়ে দেখলে majoritarianismএর আরো গূঢ় অর্থ আছে। Paul Barry Clarke, Joe Foweraker-এর সম্পাদিত Encyclopedia of Democratic Thought (London: Routledge, 2001) বইতে অ্যারেণ্ড লাইফার্ট (Arend Lijphart) সংখ্যাধিক্যবাদ বলতে বোঝেন সেই তত্ত্ব বা দর্শন যেটি মানে যে গণতান্ত্রিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে সংখ্যাধিক বা সংখ্যাগরিষ্ঠের নিয়মই চালু থাকবে। এটি আরো ব্যঞ্জিত করতে পারে এক গণতান্ত্রিক শাসনব্যস্থাকে যেখানে ক্ষমতা যত বেশি সম্ভব কেন্দ্রীভূত থাকবে  সংখ্যাগরিষ্ঠের হাতে (পৃঃ ৪২৭)

আপাততঃ মনে হতে’ পারে এইটা একেবারেই ন্যায্য কথা সংখ্যাগরিষ্ঠ ছাড়া রাষ্ট্রক্ষমতা তথা সার্বভৌমিকতার বৈধ উদ্গাতা আর কে হবে(ন)? কিন্তু সংখ্যাধিক্যবাদী সরকারও যে অনেক সময়ে অন্যায়ের আকর হতে’ পারে সে দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন জেরেমি বেন্থাম, অ্যালেক্সিস ডি টকভিল থেকে জন স্টুয়ার্ট মিল পর্যন্ত বহু উদারনৈতিক তাত্ত্বিক। তাঁদের ভয় ছিল কেবল সংখ্যাধিক্যবাদের থেকে আসা শ্রেণিগত আইনপ্রণয়ন (‘class legislation’) নিয়ে নয়। টকভিলতাঁর Democracy inAmerica বইতে যে ‘সংখ্যাধিক্যের স্বৈরতন্ত্র (‘tyranny of the majority’)-এর কথা বলেছিলেন, মিল তাকে সমর্থন করে’ এনেছেন ‘মতামতের জোয়াল’ (‘yoke of opinion’) ও এক ‘সামাজিক স্বৈরতন্ত্র’-র (‘social tyranny’) ধারণা, যা চুপিসাড়ে, জানান না দিয়ে আমাদের শিরায় শিরায় ঢুকে পড়ে’, আমাদের আচ্ছন্ন করে। [‘in political speculations the tyranny of the majority is now generally included among the evils against which society needs to be on its guard.Like all other tyrannies, the tyranny of the majority was at first, and is still vulgarly, held in dread, chiefly as operating through the acts of public authorities. But reflecting persons perceived that when society itself is the tyrant— society collectively, over the separate individuals who now compose it — its means of tyrannizing are not restricted to the acts which it may do by the hands of its political functionaries … it practises a social tyranny more formidable than many kinds of political oppression, since though not upheld by such extreme penalties, it leaves fewer means of escape, penetrating into the details of our life, and enslaving the soul itself. … ]

এই সামাজিক স্বৈরতন্ত্রকে আটকাতে মিল এমনকি বহুত্বভিত্তিক ভোটের’ (‘plural voting’)-এর কথা বলেছিলেন। এটি এক ব্যবস্থা যাতে সব নাগরিকের একটি করেভোট থাকবেই। কিন্তু আর কিছু শিক্ষিত, কৃষ্টিসম্পন্ন মানুষের ভোটের সংখ্যা হবে বেশি, দুই থেকে ছয় পর্যন্তসর্বাধিক সংখ্যক ভোট থাকবে অধ্যাপকদের (হায়!)।  কেবল এই কিছু বিশিষ্ট মানুষের বেশি ভোটের সংখ্যা বাকি সাধারণ মানুষের এক ভোটের মোট সংখ্যার থেকে বেশি হবে না। সংখ্যাধিক্যের সমর্থনের ভিত্তিতে সরকারি নীতির সীমিত বৈধতার নির্দেশ করতে মিল কিছু অসাধারণ উদাহরণ দিয়েছিলেনযেমন ইংলণ্ডে সংখ্যাগরিষ্ঠ আশি শতাংশ চা খায় বলে’ যদি সর্বদা কফির উপরই কর ধার্য করা হয়, আর চা-কে কর ছাড় দেওয়া হয়, তবে রাষ্ট্রের কুড়ি শতাংশ কফিপায়ী চিরকাল বৈষম্যের শিকার হবে। সেটা গণতন্ত্র, ন্যায় কিছুতেই সম্মত নয়!

কেউ বলতেই পারেন যে, জনসাধারণ যদি কোনো নেতাকে বা সরকারকে বিপুল  সংখ্যাগরিষ্ঠতায় জিতিয়ে আনলে সেটাতে অসুবিধে কি আছে? জনসাধারণের সংখ্যাগরিষ্ঠ সমর্থনপুষ্ট সরকার  কীভাবে অগণতান্ত্রিক হতে পারে? পারে স্যার!  কীভাবে পারে তার জন্য ‘mass society’- ধারণা আনছি আমি, William Kornhauser-এর বয়ানে। তবে Kornhauser-এর ‘mass society’-কে বোঝার জন্য একটু Emile Durkheim-এর বিখ্যাত Division of Labour inSociety গ্রন্থের মূল বক্তব্যকে বুঝতে হবে। শিল্পবাদ আর নগরবাদ থেকে আসা সমাজজীবনের বিশ্লিষ্টতাবাদী ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্যবাদ (‘atomist individualism’)যা সামাজিক সংহতিকে নষ্ট করছিলো, তাকে রোধ করতে Durkheim শ্রমিকদের সহ সমাজের অন্য মানুষদের পেশাগত সমিতি(occupational তথা professional associations) তৈরি করতে পরামর্শ দিয়েছিলেন। এই মাধ্যমিক সমিতিগুলি(secondary associations) ব্যক্তি ও রাষ্ট্রের মধ্যে একটা আড়াল, পর্দা বা ব্যবধান টাঙাবে, যাতে অসংগঠিত জনতার ক্ষোভ বা রাষ্ট্রের ক্রোধ একে অন্যের উপর আছড়ে পড়তে না পারে। এই secondary associations-গুলোই আজকের পুরসমাজ বা civil society- পিতামহ বা পিতামহী। প্রতাপভানু মেহতা আজও ভারতীয় পুরসমাজে এই পেশাগত সংস্থাগুলোর প্রভাবের অভাবের বিষয়ে খেদোক্তি করেন।

তো, যে সমাজে রাষ্ট্রের ও ব্যক্তির মধ্যে এই আড়াল নেই, সেখানে নেতা, দল বা সরকার অনিকেত, বিশ্লিষ্ট ব্যক্তিমানুষদের যখন প্রত্যক্ষভাবে আহ্বান করে’, বা তাদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রেখে’, তাদের মথিত বা আন্দোলিত করতে পারে সেটাই Kornhauser-কথিত ‘mass society’- আদিরূপ সেখানে নেতারা কীভাবে  অনিকেত, অসংগঠিত মানুষদের প্রভাবিত করে’ সংখ্যাধিক্যের সমর্থিত ব্যক্তি-একনায়কত্ব কায়েম করেছেন তা বুঝতে জর্মানিতে হিটলার, ভারতে ইন্দিরা গান্ধী বা মোদীর দিকে, আর পঃবঙ্গেও দেখুন! সর্বত্রই সংখ্যাগরিষ্ঠের সমর্থনেই স্বৈরতান্ত্রিক  প্রবণতা বিদ্যমান। Kornhauser তাঁর Politics of Mass Society (Routledge and K. Paul, 1959) বইতে গণপ্রবণতা আর বহুত্ববাদী প্রবণতার মধ্যে (‘mass tendencies and pluralist tendencies’) মধ্যে পার্থক্য করেছেন। তাঁর মতে সামাজিক বহুত্ববাদ গণতন্ত্রকে সমর্থন করে, গণপ্রবণতা নয়(‘social pluralism but not mass tendencies support liberal democracy’)তবে ‘mass society’ বিষয়ে দুটি ধারণা আছে। একটি গণসমাজকে দেখে এক পারিপার্শ্বিকতার গুচ্ছ হিসেবে যার অধীনে সমাজের এলিটরা বা প্রবররা গণ (masses)-এর চাপের প্রতি উন্মুক্ত। অন্যটায় গণসমাজ এক পারিপার্শ্বিকতাগুচ্ছ যার অধীনে অ-এলিটরা বা অপ্রবররা এলিটদের চাপের সামনে খোলা। তবুও দুটি ধারণাতেই  গণসমাজ সম্বন্ধে একটি সাধারণ চিত্রকল্প আছে যেটি এক নগ্ন, উলঙ্গ সমাজ, যেখানে সামাজিক এককগুলি বাইরের শক্তিগুলির প্রতি প্রত্যক্ষ উন্মুক্ততা স্বাধীনতাকে বিপন্ন ও অনিশ্চিত করে তোলে (‘One sees mass society as a set of conditions under which elites are exposed to mass pressures. The other conceives mass society as a set of conditions under which non-elites are exposed to elite pressures. Nevertheless, they share a common image of mass society as the naked society, where a direct exposure of social units to outside forces makes freedom precarious (p. 23) যখন সমাজের এলিটরা বা প্রবররা গণের চাপের প্রতি উন্মুক্ত তখন সমালোচকরা তাকে বিঁধেছেন। কখনও তাঁকে বলেছেন ‘the era of crowds’ (Le Bon), যেখানে গণজনতাই সার্বভৌম আর বর্বরতার জোয়ার স্ফীতিমাণ (‘the populace is the sovereign and the tide of barbarism mounts’)Daniel P. Ortega একে বলেন, (জন)গণের বিদ্রোহ (‘the revolt of the masses’)কবি  T. S. Eliotও গণসমাজকে এই নিন্দার্থেই ধরেছেন। (p. 26) কিন্তু গণতন্ত্রের বিপদ আরো বাড়ে যখন অ-এলিটরা বা অপ্রবররা এলিটদের চাপের সামনে কোনো আশ্রয় পান না। Kornhauser বলেন এক বিশ্লিষ্ট সমাজ সর্বনিয়ন্ত্রণবাদী আন্দোলনকে ডেকে আনে, যেটি এক জনসম্মোহক নেতার চেহারায় মেকি-কর্তৃত্বকে আর সর্বনিয়ন্ত্রণবাদী দলের চেহারায় এক মেকি জনসমাজকে বৈধতা যোগায় (‘The atomized society invites the totalitarian movement, which provides both pseudo-authority in the form of the charismatic leader and pseudo-community in the form of the totalitarian party’, p. 16)আমরা কি নিজের চোখে দেখছি না কীভাবে কেন্দ্রে ও রাজ্যে এক সম্মোহক নেতানেত্রীর মেকি-কর্তৃত্বের অধীনে সমবেত  এক মেকি জনসমাজ কীভাবে মানুষের স্বাধীনতার উপর উপদ্রব করছে? এটা  সামলাতেই তো মিল সকলের একভোট আর কয়েকের বহুভোটের কথা বলেছিলেন। নইলে কখনো এক লুম্পেন  জনসমাজ কখনও ধর্মের নামে, কখনও বা এক নেতার নামে স্বৈরতন্ত্র চাপিয়ে দিতে পারে বাকিদের উপর? রামের বা উন্নয়নের নামে?


কী বলছেন? তাহলে গণতন্ত্রে সংখ্যাগরিষ্ঠতার স্থান কোথায়? আছেই তো!  কিন্তু Arturo Agamben, Carl Schmitt, Friedrich Balke ইত্যাদি অ-দৃষ্টবাদী তাত্ত্বিকরা সার্বভৌমিকতা প্রসঙ্গে ‘empty space’ বা ‘empty place’-এর ধারণা এনেছেন। Schmitt বলেন এটা কোনো প্রথম স্বাভাবিক সংস্থাও নয় আর দ্বিতীয় কোনো রাজনৈতিক সংস্থাও নয় (‘is not first (natural) nor a second (political) body’)Claude Lefort, Ernesto Laclau, Jean-Luc Nancy ইত্যাদি দৃষ্টবাদ-উত্তর তাত্ত্বিকরা সকলেই এই ধারণার অংশভাগী যে সার্বভৌমিকতা হয় নিজেই একটা শূন্যতা বা ফাঁকাত্ব কিম্বা সেখান থেকে আসে (‘is either itself or emerging out of an ‘emptiness’ a‘nowhere’) Jacques Derrida একটি প্রবন্ধে বলেছেন এই ‘empty space’-এর আরেক অর্থ হলো ‘death’রুশোর বহু ব্যাখ্যাতাও বলেছেন গণতন্ত্রে সার্বভৌমিকতা হলো ফাঁকা পরিসরের এক বিশাল কাঠামো।

এই ফাঁকা পরিসর কিন্তু এক বিশাল মিউজিক্যাল চেয়ারের খেলার মতো নাগরিক/নাগরিকারা সেখানে ইস্যু বা প্রতর্ক অনুযায়ী জায়গা দখল করবেন। মৃত্যুর নগরীকে জীবনের কুঞ্জে পরিণত করবেন। ভাবুন তো আমরা সব্বাই প্রায় সব বিষয়ে দ্বিমত — মোহনবাগান না ইস্টবেঙ্গল, মেসিনা রোনাল্ডো, নাদাল না জকোভিচ, অমিতাভ না শাহরুখ, দীপিকা না করিনা/প্রিয়াঙ্কা, কিন্‌স না ফ্রিডম্যান, মার্কেট না স্টেট, কেন্দ্রীকরণ না বিকেন্দ্রীকরণ, লিবার্টি নাকি ইকোয়ালিটি, মণ্ডল/কমণ্ডল না ভূমণ্ডল — যারা উদারনৈতিক গণতান্ত্রিক সমাজের আড়াআড়ি কাটা ফাট্‌গুলির বা আনুগত্যগুলির (cross-cutting cleavages or loyalties) শরিক বা শিকার, তারা হঠাৎ একটা ‘আদ্যিকালের বদ্যিবুড়ো’ (স্মৃতি থেকে সুনির্মল বসুর বরণডালা থেকে ধার করলাম, দ্রঃ ভূমিকা)দলের সব কথাকে বেদবাক্যি বলে’ মেনে নেবে? নাকি একটা ‘identitive majority’-র অসদৃশভাবে, একটা ‘shifting majority’-র ঢঙে বিশাল মিউজিক্যাল চেয়ারের খেলায় বিভিন্ন চেয়ারে বসবে বিভিন্ন সময়ে?

মানছি, Anthony Downs তাঁর An Economic Theory of Democracy of Democracy বইতে যেমন বলেছেন, সব রাজনৈতিক দল এক একটা ব্যবসায়  প্রতিষ্ঠানের মতোতারা একটি প্যাকেজ উপহার দেয় ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলির ঢঙেই, আর ওরা যেমন অর্থনৈতিক বাজার দখল করতে যায়, তারা তেমনি রাজনৈতিক বাজার দখল করতে চায়। কিন্তু যারা ওই প্যাকেজে আঁটে না, তাদের একটি আইডেন্টিটির প্যাকেজে ভরে’ দেওয়ার যে চেষ্টা চলছে তাকে আটকাবেন কোন জৈদী? কোন অকিঞ্চন কিনতে চায় আমাকে? সুধীন্দ্রনাথের সেই লাইনগুলি মনে পড়ে। কেবল পঞ্চাশ বছর পরে জন্মালে বলতে পারতাম এই কথাগুলো

‘আমি বিংশ শতাব্দীর সমান বয়সী
মজ্জমান বঙ্গোপসাগরে; বীর নই
তবু জন্মাবধি যুদ্ধে যুদ্ধে, বিপ্লবে বিপ্লবে
বিনষ্টির চক্রবৃদ্ধি দেখে
মনুষ্য ধর্মের স্তবে নিরুত্তর, অভিব্যক্তিবাদে অবিশ্বাসী,
প্রগতিতে যত না পশ্চাৎপদ, ততোধিক বিমুখ অতীতে’


কী মেজরিটিতে আমাকে কিনবি, অকিঞ্চিৎ? বাম, রাম, ঘাস! 

অলভ্য ঘোষ

পৃথিবী জুড়ে সুবিধাবাদী  রাজনীতির কোপ ; পণ্য বাস্তবতায় খণ্ড থেকে ক্রমে খণ্ডাংশে সাধারণ মানুষ 




দুই শিবিরে ভাগ হয়ে যাচ্ছে না তো সমস্ত পৃথিবী? পশ্চিমা রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে বিরোধ দেখা দিয়েছে রাশিয়ার সিরিয়ায় বোমা হামলাকে কেন্দ্র করে। সিরিয়ায় রয়েছে রাশিয়ার একমাত্র নৌঘাঁটি। মধ্যপ্রাচ্য ঘিরে থাকা সাগরেও ন্যাটো ও রাশিয়া নৌসেনা মোতায়েন করেছে। রাশিয়ার ক্রিমিয়া দখল ঘিরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে রাশিয়ার সম্পর্ক তলানিতে গিয়ে পৌঁছেছিল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলার নামে ইরাক, আফগানিস্তানের পর ইসলামিক স্টেট সিরিয়ার বিরুদ্ধে সমরে নেমেছেতৃতীয় বিশ্বযুদ্ধে পরমাণু অস্ত্র ব্যবহার করতে পারে উন্নত দেশগুলো। এদের মধ্যে রয়েছে ইসরায়েল, আমেরিকা ও রাশিয়া। সিরিয়া-ইরানের আরেক শত্রু ইসরাইল। ইরানকে আক্রমণ করার পরিকল্পনা রয়েছে ইসরায়েলের, সিরিয়াকে নিয়েও ইসরাইলিদের আক্রোশ কম নয়। ইহুদি-বাদী ইসরায়েলের এই যুদ্ধংদেহী মনোভাবেই অত্যাচারিত ফিলিস্তিনেরা স্বাধীনতার পথচলা শুরু করেছেআমেরিকা, ব্রিটেন, অস্ট্রেলিয়া সহ ইউরোপের কয়েকটি দেশ অলিখিত ভাবেই ন্যাটোর সাথে জুটে কোয়ালিশন গঠন করে যুদ্ধকামি একপক্ষ হয়ে উঠেছেতাদের বিরুদ্ধে যে কোনও ধরনের সামরিক জবাব দেওয়ার জন্য রাশিয়া, চীন, ইরান, দক্ষিণ কোরিয়া সহ সামরিক হামলার জবাব দিতে সক্ষম আর কয়েকটি দেশ বিরোধী পক্ষে প্রস্তুত।   জঙ্গিবাদ দমনের নামে তৎপরতা; তুরস্ক, সৌদি আরব, ইসরাইল, জর্ডান ইত্যাদি আরব দেশগুলো মধ্যে অস্থিরতা বৃদ্ধি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের অশনি সংকেত। মধ্যপ্রাচ্যে  আই-এস দমনের নামে যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক, ইসরাইল ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের চক্রান্ত ফাঁস করে দিতেই যুদ্ধে রাশিয়ার আগমন। তুরস্ক, সৌদি আরব সেনা পাঠালে রাশিয়াও চুপ করে বসে থাকবে নাতৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের দামামা বাজবেচায়না যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক জোট ন্যাটোর নেংটামো দেখছে রাশিয়ার সঙ্গী হবে আমেরিকাকে রুখতে। ভারতের সাথে রাশিয়ার সম্পর্ক ছিল সহোদরের; ইসরায়েলের বুদ্ধিতে বুশ সাহেব চ্যাংচুং চায়নিজদের শায়েস্তা করবে বলে ভারতের সাথে কোলাকুলি করেছিলইসরাইল চায় কাঁটা দিয়ে কাঁটা তুলতেরাশিয়ার কাছ থেকে ভারতকে দূরে সরিয়ে দিয়ে; আমেরিকার সহযোগিতায় সেই ভারতকে দিয়েই ইসরাইলদের আরেক শত্রু চায়নার মুন্ডুচ্ছেদ করতেএদিকে পাকিস্তানিরা চাইছে তাদের কার্গিলের অধুরা মিশন কো পুরা করনে ভারত সীমান্তে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টেগুলোতে সেনা ছাউনি বসাতে শুরু করেছে লাল পতাকাধারি চিনারা। অন্যদিকে ভারতদ-মার্কিন সামরিক চুক্তিগুলোয় জোড় দিচ্ছে মোদী সরকারনেপাল এমন কি আমাদের নাগাল্যান্ড, ণিপুর, ইম্ফলকে উসকানি দিয়ে দলে ভেড়াতে চাইছে চায়না। কাশ্মীর তো উত্তপ্ত আগুন হয়েই আছেভারত বিরোধী বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের চেহারা ভারত বাংলাদেশের সামান্য ক্রিকেট-ম্যাচের গোলযোগই পরিষ্কার করে দেয়। চায়নাদের দাদাগিরি রুখতে ভারত- মালশিয়া যৌথ নজরদারির ব্যবস্থা হচ্ছে ভারত মহাসাগরে

এক সাংবাদিক আইনস্টাইনকে জিগ্যেস করেছিলেন, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ কেমন হবেতার  প্রতিউত্তরে আলবার্ট আইনস্টাইন বলেছিলেন, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধে কোন্‌ অস্ত্র ব্যবহার করা হবে, আমি জানি না। তবে জানি, চতুর্থ বিশ্বযুদ্ধে লড়াই হবে লাঠি আর পাথর দিয়ে।    সহজেই অনুমেয়; আর একটা বিশ্বযুদ্ধ আমাদের কোথায় নিয়ে গিয়ে দাঁড় করাবে!  বিশ্বযুদ্ধ আসন্ন - অনিবার্যঘরে বাইরে যুদ্ধ শুরু হয়ে গিয়েছে। বঞ্চিত, লাঞ্ছিত,  সর্বহারা মানুষ খণ্ডিত হতে হতে দ্বিধাবিভক্তমানব সভ্যতার বয়স যত বাড়বে মানুষে মানুষে ভেদনীতি বাড়বে তত; বাড়বে দেশভাগ কাঁটাতার। বিভাজিত অসহিষ্ণু মানুষ মুক্তি চাইবে, এটাই স্বাভাবিক। শুক্রাণুর মতো একে অপরের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়বে অস্তিত্ব বাঁচানোর লড়াইয়ে। জীব-সভ্যতার অলীক নিয়মে নিষিক্তকামী মানুষ আমরা আজন্ম হিংসুটে। আর ধনতন্ত্র ও সাম্রাজ্যবাদ গ-বিরোধী , মানবতা বিরোধী হিংসা ও বর্বরতা ছাড়া আর কিছুই উন্মোচিত করে না

৩৪ বছরের বাম-জামানার অবসান ঘটিয়ে পরিবর্তনের ধ্বজাধারী তৃমূল দুর্নীতিতে বামেদেরও ছাপিয়ে যাচ্ছে এই পাঁচ বছরেআবার যে কংগ্রেস-কে নিয়ে পাঁচ বছর আগেও বামফ্রন্ট ভাঙ্গা ক্যাসেট বাজাত ৭২-৭৭ সিদ্ধার্থশংকর রায় জরুরি অবস্থা;  কংগ্রেস ফিরে এলে মেয়েরা রাস্তায় বেরুতে পারবে নাআজ গণতান্ত্রিক জোটের নাম নেওয়া ছলনার আড়ালে গাঁটছড়া বাঁধতে চাইছেসিপিএমের গালে জল-ঢাললে কংগ্রেসের গলা-ভেজেকংগ্রেসের গালে জল-ঢাললে সিপিএমের গলায় পড়েকদিন আগে যে সি.বি.আই জুজু দেখে দিদিমণি দাদামণিকে ডাকাত বলতেও ছাড়েননি; তৃণ  উদ্যানে বাঁশের চাষ করতেন অনবরত; এখন বাঁশঝাড় কেটে চোর-ডাকাত তলায় তলায় দিল্লী থেকে কলকাতা এয়ারপোর্ট অভিসার লীলা করে বেড়াচ্ছে। আসলে এদেশের ভোট যুদ্ধ আই.পি.এল ক্রিকেটের মতো বোঝা-দায়, কে কার দলে। সুবিধাবাদীর রাজনীতির ঘেরাটোপে ভোট যুদ্ধে আজও প্রতিষ্ঠিত হয় মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার গুলো! বৃহৎ গণতন্ত্রর ধ্বজাধারিরা মানুষের বিশ্বাসের বলাৎকার করে চলেছে স্বাধীনতার ৭০ বছর ধরে। গণভোট নিয়ে শাসনকে রাষ্টবিজ্ঞান সমাজবিজ্ঞান কখনোই গণতন্ত্র বলে অবিহিত করে না। গণতন্ত্রে সকল নাগরিক রাষ্ট্র পরিচালনায় সরাসরি অংশ নেয়ছোট বা ক্ষুদ্র নগর বা রাষ্ট্রে এটা সম্ভব! ভারতের মতো বিপুল  জনসংখ্যা ও বৃহদায়তন রাষ্ট্রে প্রতিটি নাগরিকের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ করা সম্ভব নয়; তাই প্রতি নাগরিকের হয়ে প্রতিনিধিমূলক সংসদীয় সরকারের গঠন ও রাষ্ট্র পরিচালনার ভার অর্পণ করা হয়কিন্তু যে যায় লঙ্কায় সেই হয় রাবণ! জনপ্রতিনিধিরা জনগণের মাথায় চড়ে বসে পালিত কুকুরের মতো সংসদীয় গণতন্ত্রে কুলকুচি করে আখের গুছাতে রাজনীতির বেশ্যাবৃত্তিতে নাম লেখায়। জনহিত হয়ে দাঁড়ায় ভাই-ভাইপো পরিবার পরিজন দলীয় কর্মীর হিতসাধন

স্বাধীনতার এত বছর পরেও ভূমি সংস্কার দ্বারা ভূমিহীন খেতমজুরেরা জমির মালিকানার স্বীকৃতি পায়নিদেশের ১৭ % বিত্তবান কৃষক ৮০% জমির মালিকানা দখল করে বসেমুক্ত ও অবাধ অর্থনীতিতে শ্রেণী বিভক্ত সমাজ নিয়ে গঠিত রাষ্টে মুষ্টিমেয় পরিবার ও ব্যক্তির হাতে সমস্ত ধনসম্পত্তি জাতীয় সম্পদ কুক্ষিগত। অবশিষ্টাংশের স্বল্প আয়ের দিন এনে দিন খাওয়া বিপুল সংখ্যার জনগণ মোটা অর্থব্যয়ে রাষ্ট্র নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবে নাঅতি বিত্তবান মুষ্টিমেয় কোটিপতিদের পোষা রাজনৈতিক দলগুলো ফি-বছর ভোট উৎসব করে জনগণের ভোটে বলীয়ান হয়ে বিত্তবানের স্বার্থে জনগণকে শাসন করে যাবেযে দলই ক্ষমতাসীন থাকুন না কেন, এরা জাতীয় আয় ও সম্পদের আশি শতাংশ নিজেরা  আত্মসাৎ করে; যারা জনসংখ্যার মাত্র পাঁচ শতাংশের মতোঅবশিষ্ট পঁচানব্বই শতাংশ মানুষ জাতীয় আয় ও সম্পদের বিশ শতাংশ ক্ষমতাসীন দলের করুণায় পায় ফলে জাতীয় আয় ও সম্পদ বণ্টনের অসমতা অনুন্নত দেশগুলির মানুষকে চরম দারিদ্র্যতার পথে ঢেলে দিচ্ছে

সারা পৃথিবীতে আজ গরিব বড়লোকে দ্বিধাবিভক্ততাদের আরও দ্বিধান্বিত করে দেওয়া হচ্ছে ধর্ম বর্ণর লেবেল সেঁটে। যা মানবজাতির পক্ষে অতীব ক্ষতিকর। টি.ভি সিরিয়াল, রিয়েলিটি-শো, সিনেমা, আই.পি.এল ক্রিকেট, মহরম, দুর্গাপুজো, বড়দিন সবেতেই বিনোদনের ছড়াছড়ি। সাধারণ, অশিক্ষিত, শিক্ষিত, নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্তকে এমন সব সংস্কৃতির চর্চায় বেঁধে রাখা হচ্ছে, যার জন্য পর্যাপ্ত মনোযোগ আর বুদ্ধিমত্তার প্রয়োজন নেই। ওয়াল্টার বেঞ্জামিন দ্য ওয়র্ক অব আর্ট ইন দ্য এজ অব মেকামিকাল রিপ্রোডাকশন বইটির (১৯৩৬) লেখক দুটো কনটেক্স থেকে মানুষের স্বরূপটিকে চিহ্নিত করেছেনপুঁজির ক্রমবর্ধমান বিকাশে আরও বেশি মানুষের সর্বহারা শ্রেণীভুক্ত হওয়া এবং আমজনতার বাড়বাড়ন্ত চায় বিদ্যমান সম্পত্তি কাঠামোর পরিবর্তন। অন্যদিকে দ্বিতীয়টিতে, ফ্যাসিবাদী শক্তি চায় বিদ্যমান সম্পত্তি কাঠামো অক্ষুণ্ণ রেখে জনতাকে সংগঠিত করতেআর এর জন্য সম্পত্তির বিদ্যমান বিন্যাসের মধ্যেই ফ্যাসিবাদ জনতার জাগরণ কামনা করে। জনতাকে বশীভূত করে রাখতে চায়জনতার উত্থান সম্ভাবনা বিশেষ আচার বা নিগড়ে বাঁধতে চায়তাই ফ্যাসিবাদে নান্দনিকতা রাজনীতির স্থলাভিষিক্ত হয়
মানুষ বিভ্রান্ত, মোহগ্রস্তীমাহীন দারিদ্র্য সম্বন্ধে দরিদ্ররা যাতে প্রশ্ন না তোলে, তাই মানুষের মূল্য দাঁড় করানো হয়েছে তার আপাত সত্তায় এবং আশু সম্ভাবনায়। ক্ষুদার্ত মানুষের ক্রোধ হলে ছিটিয়ে দাও দুমুঠো দুটাকা দামের চালচালবাজির একটা সাইকেল, যুবকল্যাণের নামে ক্লাবে ক্লাবে দান খয়রাতি, স্বাধীনতা দিবসের নামে ফিসটি, কন্যাশ্রী, মাতাশ্রী, ভ্রাতাশ্রী; বঙ্গবিভূষ টুসণের ছড়াছড়ি। প্রাপকেরা ছি ছি  বলে পোস্টার নিয়ে রাস্তায় নামবেন নেত্রীর পান থেকে চুন খসলেইঅথচ খেতে না পাওয়া কৃষকের আত্মহত্যা, রোজ-ভ্যালি সারদায় সর্বস্ব হারানো মানুষগুলোর যা গেছে, তা যাক

মানুষ বিভ্রান্ত; শুধু এদেশে নয়, সারা পৃথিবীতে। পশ্চিম ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, জাপান, অস্ট্রেলিয়া (কালোরা বাদে) পৃথিবীর বিভিন্ন বিত্তশালী অঞ্চলে সাধারণ মানুষের গড় আয় পনেরো \ বিশ হাজার ডলার হলেও তারা সর্বহারা মানুষের দলেই রয়ে গেছেশ্রম ছাড়া কিছুই নেই বেচার মতোবাড়ি, গাড়ি, ফ্রিজ,ডিস্ ওয়াশার, টিভি, কম্পিউটার বিভিন্ন কোম্পানি থেকে কিস্তিতে কেনা বাবদ হাজারটা ঋণ থাকে মৃত্যু পর্যন্ত, শোধ হয় নাধনতন্ত্রী দেশগুলিতে মানুষের জীবনের গু (কোয়ালিটি অফ লাইফ) বাড়েনি, বরং কমে গেছেঅনেক থেকেও তারা সুখী নয়অসাম্যের দরুন সে সব দেশে সামাজিক সুস্থতা নেই; আত্মহনন, নেশাগ্রস্ততা, খুনখারাপি, বিবাহবিচ্ছেদ, ধর্ষণ, বেশ্যাবৃত্তি, গুণ্ডামি, ডাকাতি, রাহাজানি, চুরি, পাগলামি বেড়েই চলেছে। তাই তথাকথিত উন্নত দেশগুলির মানুষ চরম অসুখী ও মানসিক ব্যাধিগ্রস্ততৃতীয় বিশ্বর মানুষের উভয় সংকট আর্থিক ও মানসিক দারিদ্রতামুষ্টিমেয় দেশি ও  বিদেশি শোষকরা নানা শৃঙ্খলে তৃতীয় বিশ্বের মানুষকে আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে রেখেছেসাম্রাজ্যবাদ, পুঁজিবাদ, মাফিয়াচক্র, উগ্রপন্থা, সামন্ততান্ত্রিক স্বৈরাচারী ক্ষমতা মানুষকে কেবল দা বানিয়েই ক্ষান্ত হয়নি, ক্রমশ পণ্য সভ্যতার দিকে ঠেলে দিয়ে তাকে যন্ত্রমানবে পরিণত করেছে। বিপন্ন বিচ্ছিন্ন করে তুলেছে। আত্মার সাথে, বিবেকের সাথে শরীরের বিচ্ছিন্নতাবাদ নিজের মধ্যে নিজেকে টুকরো করতে করতে চেতনাকে স্থূল করে তুলেছে। সবই আজ ব্যবসার অংকে বিচার হয়। আজকের এই পণ্য বাস্তবতায় মানুষ কেবল ভোটার; একটা পরিসংখ্যাননিজেদের প্রকৃত অস্তিত্ব ভুলে লাল-নীল-সাদা-কালো-সবুজ-বেগুনিতে আপাত সম্মোহিত। উদার অর্থনীতির খোলা দরজা দিয়ে  ড্যাং ড্যাং করে ঢুকে পড়া অ্যামেরিকান কোম্পানিগুলো আসলে ইস্টইন্ডিয়া কোম্পানিরই রূপান্তর। ইংরেজ ও জমিদারেরা সামনের দরজা দিয়ে ঢাকঢোল পিটিয়ে প্রস্থান করলেও সাম্রাজ্যবাদী নয়া উপনিবেশিকতাবাদের দোসরেরা পিছনের ভেজানো দরজা দিয়ে ঢুকে পড়েছে চুপিসারেসর্বত্রই বিদেশী পুঁজি বিনিয়োগের ছড়াছড়ি সাধারণের ধন প্রাণ যায় যায় অবস্থা।  স্বাধীনতা আজো অধরা সাধারণের। সংরক্ষণ, আরক্ষণ সমর্থন করবে, না কি বিরোধিতা করবে? ব্যক্তিগত শরিয়তি আইন রক্ষা করবে, নাকি সকলের জন্য  অভিন্ন বিধির বলবত হোক, চাইবে? ধর্মনিরপেক্ষতা (secularism),  নাকি ছদ্মবেশী হিন্দুত্ববাদ? আর এস এস নাকি এস এফ আই? সব গুলিয়ে গ! মুক্ত  বাজারে জাতীয়তাবাদের সারাৎসার জীবের জৈবিক প্রক্রিয়ায় নির্মিত মল বা বিষ্ঠার মতো পরিত্যাজ্যসুবিধাবাদীর রাজনৈতিক বাতাবরণে কখনোই জনদরদী গণতান্ত্রিক মতাদর্শের জন্ম হয় নাকারণ জনগণের চেতনার গলা টিপে ধরে আখের সিদ্ধি, ধরনের রাজনীতির মুখ্য উদ্দেশ্য, যা সারা পৃথিবী জুড়ে চলছে। আবহমান কাল থেকেই শোষিত নিপীড়িত মানুষ জাতিধর্ম ভৌগলিক স্থানাঙ্ক নির্বিশেষে এই ভূধরায় একই আকাশের তলায় অবস্থান করছে। নৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক অবক্ষয়ের মধ্যে অনিশ্চিত জীবনে রোজ মরছে যারা, তাদের সবকিছুকে গোল পাকিয়ে দিয়ে তৈরি হচ্ছে পৃথিবীর মধ্যে পৃথিবী, দেশের মধ্যে দেশ, গোষ্ঠীর মধ্যে গোষ্ঠী, ধর্মের মধ্যে ধর্ম, ব্যক্তির মধ্যে ব্যক্তিআদিম সাম্যবাদী সমাজ থেকে দাস সমাজে,  দাস থেকে  সামন্ত সমাজে, সামন্ত থেকে ধনতন্ত্রী সমাজে, ধনতন্ত্রী পুঁজিবাদী সমাজ  থেকে পণ্য সমাজে এবং পণ্য সমাজ থেকে দ্রুত যন্ত্র সমাজে ঢুকে পড়েছি, যেখানে মানুষের হাত পা মস্তিষ্ক সবই আছে, তবে তা রিমোট কন্ট্রোলে নিয়ন্ত্রিত হয়

হয়তো আর একটা যুদ্ধ বা ধ্বংসই মানুষের শ্রেণীর বিলুপ্তি ঘটিয়ে আবার পিছিয়ে নিয়ে যাবে আদিম রাষ্ট্রহীন সাম্যবাদী সমাজেকত কোটিবার যে নগর ধ্বংস হয়েছে, তা ইতিহাসও সঠিকভাবে জানে না



তথ্যসূত্র:

১) বাংলাদেশ : প্রতিদিন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ! তানভীর আহমেদ, প্রকাশ : বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০১৫।
২) breakingnews.com সিরিয়া যুদ্ধে রাশিয়া কেন লেখক: আন্তর্জাতিক বিষয়ক সাংবাদিক ব্রেকিংনিউজ/এসডি
৩) রেডিও তেহরান (Radio Tehran) আনোয়ারুল হক, সিরিয়া-ইরান ইস্যুকে কেন্দ্র করে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ কি অত্যাসন্ন? মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট ২০১৫, ১৯টা ২৬।
৪) গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সাংস্কৃতিক সংগঠনের ভূমিকা - আব্দুল মির খান
৫) magicianthon.org - ভারতীয় চলচ্চিত্রে আমদানি : নয়া শিল্প আকাঙ্ক্ষার চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত- আরিফ রেজা মাহমুদ 
৬) অর্ধেক আকাশ - নির্বিচার যৌনতা এক-গামী না বহু-গামী, জয়তি
৭) আলিপুর বার্তা ২৩ জানুয়ারি ২৯ জানুয়ারি, বিশ্বায়নের দরবারে ভারতীয় অর্থনীতি, সুস্বাগত বন্দ্যোপাধ্যায়
৮) Sowmewhereinblog.net \ বাঁধভাঙ্গার আওয়াজ