পঞ্চম বর্ষ / অষ্টম সংখ্যা / ক্রমিক সংখ্যা ৫০

বুধবার, ১ নভেম্বর, ২০১৭

মৃণালিনী

Top of Formদাবানলে ঈশ্বর

দাবানলে খান্ডববন আঁচ শরীরের রোম কূপে
চাতকের চোখ আকাশে; বৃষ্টির আশায় নয় চিলের পাখার দিকে
পরিধি চিহ্ন রেখা সীমানায়- লোলুপ প্রেমের হাতছানি এড়াতে
          বৃষ্টির চোখে জল  কুয়াশার দ্বন্দ্ব গরম জলীয় বাস্পে। 

ভাবগুলো দুধ ফেটে দই
পুষ্টির অভাবে জিরো ফিগারের যোগব্যায়াম- দৃশ্যমান রুপোলি জগৎ
 
স্টেজে ফরচুলা পড়ে খসে
              খালি পেটে অগস্তের আগুন রোষানলে অগ্নিগর্ভ ভাষা। 

কার্য কারণের ব্যবধান দুস্তর হলে কল্পনার পরিমিত জাল নিমেষে মেলে পাখা
জবাবদিহি নিছক আত্মস্থ বেহিসেবির তাগিদ প্রশ্নকর্তার চোখে উদ্ভাসিত পরিণাম-
আলোর রোশনাই সুসভ্যতার রঙ-বেরঙের লিপস্টিকে ব্যস্ত
                                                     কৃত্রিম ছায়ার অলিগলি

নিষিদ্ধ ঝুপড়িগুলোতে লন্ঠন  চোখের গর্তে  কুহুকের দাবানল
আগুন ভেসে বেড়ায় জলচোখে সমুদ্র ছেড়ে মন কুঠুরিতে মৌমাছির প্রশ্ন
মন্ডপ ছেড়ে ঈশ্বর মুখোমুখি 
                        জবাবদিহির ছলে পুজো নিতে আগ্রহী অথবা অনাগ্রহী


 যাদুঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে

সাদা পালক খসে পড়ছে লাল কার্পেটে 
আগমনী সুরের বিটোফেন সুরের মোহময় আবেশে 
          সম্ভাব্যময় চাঁদ আগামীতে ক্ষতে মাটিতে 

ময়দানে হাজার হাজার শেয়াল
সমবেত হুক্কা হু য়া ...
সারসের মুখে বর্ণ পরিচয় ক্রমশ ভাষার ঝাঁকুনি রাঙ্গানি গোঙ্গানি
গাদার কনফিউশন
           ডাসা পিঁপড়ের আমদানি নির্বোধের কানের লতিতে

বিটোফেন সুরের আবেশে কর্কটেল হুক্কা হুয়ার কোরাস
শতাব্দীর পর শতাব্দী সূর্য লুকিয়ে রাখে আয়না
              জান্তব্য প্রবৃত্তি পদাবলীর সুরে মুখ ফেরায় অতীতে...


শব্দ লোকে কবিতা বনাম অ-কবিতা 

শব্দগুলো এলোমেলো জলহীন মাছ স্তব্ধ জলাশয়ের প্রকৃতিতে কালো
নীরব চোখে রাঙানি হাওয়ায় তিল তিল সরব
উন্মুক্তে ব্যর্থ  প্রয়াসে পরিধেয় সুতির জামাতে নেমে পড়ে কালো পীচের রাস্তায় 
                                          ভূ-গর্ভের চাপা কঙ্কালেরা হাওয়ায় নীরব
             
আকাশে সূর্য দেখেছিলাম রাতে নীল আকাশের চাঁদ দেখা হয়নি
ভোরের সকাল দেখব বলেই জেগে আছি প্রহরীর মতো
ঘটনার পূর্বাভাস ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়ের জানা অসম্ভব অথচ
                                  ঘটে যাবার পরে বাসি খাবার মুখে রোচে না আর
             
শব্দ আর নৈঃশব্দের ব্যবধানে ভাবের  গুমরানো ভাষা
ক্রমশই প্রকাশ্য... বলে বলে ঝুলে থাকবে মনের দেয়ালে দেয়ালে
অনন্তকালের রূপকথাগুলো বিপরীত মেরুতে - অলঙ্ঘিত বিধান 
কালো রাতের পাতায় তবুও লেখা হবে  কালো অক্ষরে কিছু শব্দ
                 অনুচ্চারিত  কিছু  কথা- কবিতা বা অ- কবিতার দেয়াল পত্রিকায়


আকাশে জাতীয় সড়ক

আকাশের সাতটি রাস্তার স্তরে স্তরে খোদাই করি
দু
পাশে জমিয়ে রাখি মৃত-জীবন্তের স্তূপ 
                  মাটি থেকে আকাশ-নতুন পথ

প্রয়োজনে ওভারব্রিজ
নিচে ছোট ছোট বেশ্যালয়  
সাতটি স্তরে রামধনু আকাশে
জাতীয় সড়কের নাম রাখা হবে
            অতীতে বিখ্যাত মৃত মানুষের নামে

বর্তমান বলে কিছু নেই-
                তাই বিখ্যাত হবার প্রশ্ন ওঠে না।













0 কমেন্টস্:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন