পঞ্চম বর্ষ / নবম সংখ্যা / ক্রমিক সংখ্যা ৫১

শুক্রবার, ১ ডিসেম্বর, ২০১৭

কাজল সেন

শূন্য প্ল্যাটফর্মে

শূন্য প্ল্যাটফর্মে পেতে রাখা এই চেয়ার
শুধু তোমারই জন্য পেতে রেখেছি আমি
ভোরের আলো ফুটে ওঠার আগে
যখন ফুটে ওঠে তোমার নম্র স্তন
বিকেলের আলো নিভে আসার আগে
যখন তোমার টানটান শরীরে
অস্ফূট অন্ধকারের বিদগ্ধ টান
অথবা তুমি এভাবেও ভেবে নিতে পারো
একা একা চুপকথা পেরিয়ে খোলা আয়নায়
তোমার শরীরের প্রতিটি খাঁজ
খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখার সেই মগ্ন উল্লাস
বা চোখে চোখ রাখার আনন্দ ঘন মুহূর্তে
তোমার স্বরচিত উজিয়ে আসা আড়াল আবডাল

শূন্য প্ল্যাটফর্মে পেতে রাখা এই চেয়ার
তোমারই প্রতীক্ষায় কতদিন কতযুগ কত যে কাল
তুমি আসবে বলে শুধু তোমারই জন্য আমি
সাজিয়ে রেখেছি সারি সারি শূন্য আকাশ


বৃষ্টির আসা যাওয়া

বৃষ্টি আসার কথা ছিল সেদিন
বৃষ্টি এসেছিল ঠিকই তবে কিছুটা দেরীতে
আর সেই আসা না-আসার ফাঁকতালে
আমি সেরে রেখেছিলাম কিছু কাজ
এই যেমন কতদিন যে লেপ বালিশ তোষক
চোখ মেলে দেখেনি রোদেভরা ছাদ
যাব যাব করে কতদিন যে যাওয়া হয়নি
চাঁদনি চকে ছোটপিসীর ফ্ল্যাট

বৃষ্টি চলে যাবার পরও ছিল আরও কিছু কাজ
এই যেমন বুলবুলির টিউশন টুলটুলির নাচ
ছোটনের ছুটে বেড়ানোর অভ্যাস
আর বৃষ্টির প্রবল তোড়ে যে চারাগাছগুলো নুয়ে পড়েছিল
পরম আদর যত্ন ও সসম্মানে তাদের বাঁচানোর প্রয়াস

বৃষ্টি আসা যাওয়ার পথের ধারেই আমার সোনামণি আবাস



0 কমেন্টস্:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন